২০০ বছরের পুরোনো মন্দির সহ ২১ শতাংশ জায়গা দখল পিরোজপুরে

প্রভাবশালী স্থানীয় জমি দখলকারীরা পিরোজপুরের এক অভিজাত সংখ্যালঘু হিন্দু পরিবারের ২০০ বছরের পুরানো শিব মন্দিরের ১০শতাংশ এবং পরিবারের ১১ শতাংশ জমি সহ মোট ২১ শতাংশ ভূমি জোর জবরদস্তি করে নিল ।

ঘটনাটি ঘটেছে পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর থানাধীন দিঘিরজান গ্রামে।

সোমবার (৬ জুলাই) ২০২০, সকাল আটটার দিকে মোহাম্মদ কামরুল শেখ (কাবুল), মোহাম্মদ শাহজাহান শেখ (তাহসিলদার) ও মোহাম্মদ হেদায়েত শেখের নেতৃত্বে কয়েকশ নাম না জানা অজ্ঞাত লাঠিয়াল কাঁটাতারের ও বাঁশের বেড়া ভেঙে জায়গাটি দখল করে।

শহীদ জননী কলেজের অধ্যক্ষ এবং ভুক্তভোগী হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ নাজিরপুর উপজেলার সহ-সভাপতি মিঃ দিপ্তেন মজুমদার এ ঘটনার তীব্র নিন্দা প্রকাশ করেছেন । তিনি আরো বলেন যে, তাদের ২০- বছরের পুরানো শিব মন্দিরের ১০ শতাংশ এবং ব্যক্তিগত মালিকানাধীন জমির 11 শতাংশ কাঁটাতার এবং বাঁশ দিয়ে আবরণ দেওয়া ছিল। উল্লেখ্য যে, ব্যাক্তিগত ১১ শতাংশ জায়গা এবং মন্দিরের ১০ শতাংশ জায়গা সরকারী খাতায় তাদের নামে লিপিবদ্ধ আছে।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত দিপ্তেন মজুমদার তাদের বাধা দেয় এবং বলেন যে জায়গাটি ডকুমেন্ট আছে , যা আমাদের নামে দলিল ও রেকর্ড করা । “আপনারা যদি জমির মালিক হয়ে থাকেন , তাহলে আপনার বৈধ কাগজপত্র দেখান এবং সরকার বা প্রশাসনের পক্ষে আমাদের জায়গা বুঝিয়ে দিক । কিন্তু দুষ্কৃতিকারীরা তার কোনও কথায় কান না দিয়ে তাদের পেশীর শক্তি প্রয়োগ করে এবং কাঁটাতারের সমস্ত বেড়া ভেঙে ফেলে এবং সেই সাথে হুমকি ও ধামকি দেয় । এছাড়াও তারা পরিবারের মহিলা সদস্যদের উপর অশ্লীল ভাষার প্রয়োগ করে এবং যথেষ্ঠ অপমান ও করে।

স্থানীয়দের মতে, তাদের অমানবিক অত্যাচার থেকে কেউ বাদ যাচ্ছে না , সবাই এই দৃবৃত্তের অপকর্মের কাছে নির্যাতীত । সে ধনী হোক বা গরীব, শক্তিমান বা শক্তিহীন। যাই হউক , দিন শেষে এরকম ভাবে দেশের বিভিন্ন জায়গায় ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের বিভিন্নভাবে নির্যাতন করা হচ্ছে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *