ভারতীয় অ্যাপস আরোগ্য সেতু এর রেকর্ড পরিমাণ ডাউনলোড হয়েছে

খবর সূত্রে জানা যায় , আরোগ্য সেতু অ্যাপসটি ৮০.৭ মিলিয়নের বেশি ডাউনলোড হয়েছে এপ্রিল মাসেই । আর মে , জুন এর পর জুলাই মাসের প্রতিবেদনে যা উঠে এসেছে অ্যাপসটি বিষয়ে তা হলো এ অব্দি অ্যাপস টি ১২৭.৬ মিলিয়নের ও বেশি ডাউনলোড হয়েছে । আর ভারতীয় হিসেবে এটা অনেক এবাং রেকর্ড পরিমাণ । জানা যায় এই অ্যাপটি যাত্রা শুরু করে এাপ্রিল মাসেই , ভারত সরকারের অনুমতিতেই ।
সেই এপ্রিল মাসে, আরোগ্য সেতু অ্যাপ্লিকেশনটি বিশ্বব্যাপী ডাউনলোড করা সেরা দশ অ্যাপের মধ্যে স্থান পেয়েছে।
৪ মে অবধি, ভারতে প্রায় 90 মিলিয়ন মোবাইল ব্যবহারকারী এই কোভিড -19 ট্রেসিং অ্যাপটি ডাউনলোড করেছেন। জুনে আরোগ্যা অ্যাপটি প্রতিদিন গড়ে 5 লক্ষ বার ডাউনলোড করা হত।

এনকেবার্তা ডিজিটাল ডেস্ক: ভারতের কোভিড -১৯ ট্রেসিং অ্যাপ আরোগ্য সেতু একটি বড় রেকর্ড গড়েছে। এখনও অবধি, এই দেশ অ্যাপটি বিশ্বের সর্বাধিক ডাউনলোড হওয়া অ্যাপগুলির মধ্যে প্রথম স্থান অর্জন করেছে। সেন্সর টাওয়ার থেকে সম্প্রতি এমন তথ্য উঠে এসেছে। প্রতিবেদন অনুসারে, এই করোনার ট্রেসিং অ্যাপটির ৮০.৮ মিলিয়ন ডাউনলোড এপ্রিল মাসেই করা হয়েছিল। সব মিলিয়ে জুলাইয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে আরোগ্যা সেতুর জন্য এখনও পর্যন্ত ১২৭.৬মিলিয়ন ডাউনলোড করা হয়েছে, যা ভারতীয়দের হিসাবে ১২৭.৬ মিলিয়নেরও বেশি। এ জাতীয় পরিসংখ্যান দেশ কেন , বিশ্বের ইতিহাসে ও নজিরবিহীন।

সেন্সর টাওয়ারের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে যে আরোগ্যা সেতু কেবল ভারতে ডাউনলোড করা হচ্ছে না। আরগ্যে সেতু অ্যাপসটি এখন বিশ্বজুড়ে লোক গুলো এই ভারতীয় কোভিড -১৯ ট্রেসিং অ্যাপটি ব্যবহার করছে। আরোগ্যা সেতু ডাউনলোডের ক্ষেত্রে অন্য সকলকে দেশকে ছাড়িয়ে একটি রেকর্ড তৈরি করেছে।

Covis Safe অ্যাপসটি অস্ট্রেলিয়ার । এই অ্যাপসটি শীর্ষে স্থান করা কোভিড ট্রেস করার মধ্যে অন্যতম । কোভিড সেফ অ্যাপসটিকে অস্টেলিয়ার নাগরিকরা অধিক গুরত্বসহ কারে ব্যবহার করে যার ফলে এই অ্যাপসটির ধারে কাছে আরো কোন অ্যাপস ও নেই ।
COVIDSafe অ্যাপটি দেশের জনসংখ্যার 21.6 শতাংশ উপস্থাপন করে। করোনাভাইরাস ট্রেসিং অ্যাপসের তালিকায় তুরস্ক ও জার্মানি অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের মধ্যে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। ভারতে মাত্র 12.5 শতাংশ মানুষ আরোগ্য সেতু অ্যাপ্লিকেশনটি উপস্থাপন করেন।

জরিপটি বিশ্বব্যাপী মোট 14 টি দেশে পরিচালিত হয়েছিল। এর মধ্যে অস্ট্রেলিয়া, তুরস্ক, জার্মানি, ভারত, ইতালি, পেরু, জাপান, ফ্রান্স, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম এবং ফিলিপাইন রয়েছে। জনসংখ্যার বিচার করলে ১৭৩ মিলিয়ন লোকের মধ্যে মাত্র ১.৯ বিলিয়ন লোক তাদের গৃহকেন্দ্রিক সরকার কোভিড -১৯ ট্রেসিং অ্যাপের উপর আস্থা প্রকাশ করেছে। সেন্সর টাওয়ারটি জাতিসংঘের অনুমানের ভিত্তিতে তৈরি, যা ১৪ বছর বা তার বেশি বয়সের লোকের উপর ভিত্তি করে।

তবে কেন ভারতীয়রাআরগ্য সেতু অ্যাপকে নিজের মনে করে নিতে পারছে না ?
ভারতে রয়েছে অনেক রাজ্য । আর রাজ্য সরকারের অনুমতি্তেই তৈরী হয় করোনা ট্রেসিং অ্যাপ । যার কারণে রাজ্যর নাগরিকদের নিকট রাজ্যর তৈরী করা অ্যাপসটি জনপ্রিয়ের শীর্ষে থাকে । যার কারণে ভারতের তৈরী আরাগ্য অ্যাপ থাকা সত্বেও রাজ্যর তৈরী করা অ্যাপস থাকার কারণে ভারতের জনগণ স্থানীয় অ্যাপ গুলোকে প্রাধান্য দেয় যার কারণে ভারত আরগ্যে সেতু অ্যাপসের প্রাধান্য কম ।

আরোগ্য সেতুর যাত্রা শুরু হওয়ার থেকে অ্যাপসটি সাড়া বিশ্বে আলোড়ন তৈরী করেছে । খুব স্বল্প সময়ে এরকম ভাবে কোন অ্যাপস ডাউনলোড হয় নি যে হিসেবে ভারতীয় কোভিড পরীক্ষা আরোগ্য সেতু অ্যাপসটি ডাউনলোড হয়েছে । এটা এত পরিমাণ ডা্‌উনলোড হয়েছে যে, সেরা ১০ টি অ্যাপসের তালিকায় চলে এসেছে । এমনকি ৪ মে অবধি, ভারতে প্রায় 90 মিলিয়ন মোবাইল ব্যবহারকারী এই কোভিড -19 ট্রেসিং অ্যাপটি ডাউনলোড করেছে এবং জুনে আরোগ্যা সেতু অ্যাপসটি প্রতিদিন গড়ে 5 লক্ষ বার ডাউনলোড করা হয়েছিল ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *