ফুঁসছে ব্রহ্মপুত্র, ১৬ জেলায় ২.৫৩ লক্ষ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত, অসমে ভয়ঙ্কর বন্যা পরিস্থিতি

অবিচ্ছিন্ন বৃষ্টিতে প্রবাহিত হচ্ছে ব্রহ্মপুত্র। অনেক অঞ্চলে ব্রহ্মপুত্রের জল বিপদ অঞ্চলে প্রবাহিত হয়। ভাসমান খামার হাজার হাজার হেক্টর ফসল নষ্ট হয়েছে। ১৬ টি জেলার অনেক অঞ্চল এখন ডুবে গেছে। অনেকে বাড়ি ছেড়ে আশ্রয় শিবিরে গেছেন।

ব্রহ্মপুত্রে বিস্ফোরণ, ১৮ টি জেলায় আক্রান্ত ২.৫৩ লক্ষ মানুষ, আসামের মারাত্মক বন্যার পরিস্থিতি

লক্ষণীয় করা

অবিচ্ছিন্ন বৃষ্টির কারণে আসামে বন্যার পরিস্থিতি
ব্রহ্মপুত্রের জল উঠছে
ব্রহ্মপুত্রের জল বিপদসীমার উপরে অনেক জায়গায় প্রবাহিত হচ্ছে
শুক্রবার বন্যার পানিতে ডুবে আরও একজন মারা গেছেন।
১৪২ টি আশ্রয়কেন্দ্রে ১৮০০০ শিকার রয়েছে।
ক্ষতিগ্রস্থ ১। টি জেলা

শুক্রবার আসামে বন্যার পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়েছে। সরকারের মতে, ১৮ টি জেলায় এখন পর্যন্ত ২.৩৩ লক্ষ মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। শুক্রবার ডিব্রুগড়ের টেঙ্গাঘাট বন্যার পানিতে ডুবে এক ব্যক্তি। সব মিলিয়ে বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়েছে ১৬ জনে।

শুক্রবার আসাম রাজ্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ (এএসডিএমএ) জানিয়েছে যে বন্যায় রাজ্যের ৪০৮ টি গ্রামের আড়াই লক্ষ লোক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ জেলার তালিকায় ডিব্রুগড় ছাড়াও ধেমাজি, লক্ষ্মীপুর, বিশ্বনাথ, উদালগুড়ি, দারাং, বকসা, নলবাড়ী, কোকরাঝার, বরপেটা, নাগাঁও, গোলাঘাট, জোড়হাট, মাজুলি, শিবসাগর ও তিনসুকিয়া অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

একমাত্র ধেমাজি জেলায় ৬০০০ মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল। তিনসুকিয়ায় ৫৯০০০ নদী-দ্বীপ জেলা মাজুলিতে ৩২০০০ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ডিব্রুগড়, লক্ষ্মীপুর ও নলবাড়িতে ২৩,০০০, ১৩,০০০ এবং ,,৪০০ জন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল।

আসাম সরকারের প্রাথমিক অনুমান অনুযায়ী ১১০৮৫.২৬ হেক্টর জমির ফসল এখন পানির নিচে। রাজ্য জুড়ে প্রায় ১ লক্ষ জন বন্যার শিকার ১৪২ টি ত্রাণ শিবিরে আশ্রয় নিয়েছে। সরকারী কর্মকর্তাদের মতে, এ বছর শুধু মানুষই ক্ষতিগ্রস্থ হয়নি, তবে বন্যার ফলে ১.৩৭ লক্ষ গবাদি পশুও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। পানিতে আশ্রয়ের সন্ধানে স্থানীয়দের তাদের জিনিসপত্র এবং গবাদি পশু বহন করতে দেখা গেছে।

ভুটান ও আসাম সহ উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় অন্যান্য রাজ্যগুলি একটানা বৃষ্টিপাতের কবলে। যার কারণে আসামে ভয়াবহ বন্যার পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে। ব্রহ্মপুত্র নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে অনেক জায়গায়। আসাম রাজ্য বিপর্যয় পরিচালন কর্তৃপক্ষের (এএসডিএমএ) এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ব্রহ্মপুত্র জোড়হাট জেলার নেমতিঘাটে বিপদসীমার অতিক্রম করছেন। একই অবস্থা তিনসুকিয়া জেলার সোনিতপুরেও। বন্যার জলছবির কাজিরাঙ্গা জাতীয় উদ্যানও পুড়িয়ে দিয়েছে। পার্কের ১৮৩ টি শিবিরের মধ্যে ৬০ টি নিমজ্জিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *