পাকিস্তানে হিন্দু মেয়ে নাসিবানকে জোড় করে যৌন নির্যাতন ও ধর্মান্তরিত মা অজ্ঞান

পাকিস্তানে হিন্দু মেয়ে নাসিবানকে জোড় করে যৌন নির্যাতন ও ধর্মান্তরিত মা অজ্ঞান

nkbarta পাকিস্তানে এক হিন্দু মায়ের করুন আতর্নাদ । কোন ধর্মানুসারি এরকম পাশবিক কর্ম করতে পারে না , যদি না তার ধর্ম পাশবিক হয় । পাশবিক ধর্ম অর্থাৎ অসুর , রাক্ষস, শয়তান ধর্ম বলে যদি কোন ধর্ম থাকে , সে ধর্মের লোকরাই এরকম জঘন্য , পশুর থেকে ও নিকৃষ্টতম কাজ করতে পারে ।


পাকিস্তানের একজন অমুসলিম হিন্দু মা বলেছেন, তার ১৪ বছরের কন্যা নাসিবান । নাসিবান কে জোড় করে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গেছে । চোখের সামন থেকে । আমরা অসহায় , কিছুই করতে পারলাম না । একটি ইসলামিক দেশে অমুসলিম হিন্দুদের জন্মগ্রহন অভিশাপ । দিনে দুপুরে আমার মেয়ে তুলে নিয়ে গিয়ে সৈয়দাবাদ, হালা, মাটিয়ারী, পাকিস্তানের সিন্ধুতে যৌন নির্যাতন করেছিল আর জোরপূর্বক ইসলাম ধর্মে ধর্মান্তরিত করল ২৭ জুন ২০২০ । নাসিবানের মা এরকম দুঃখ প্রকাশ করে কাঁদতে কাঁদতে অজ্ঞান হয়ে পড়ে ।

সত্যিই , শয়তানরাই একমাত্র এরকম কাজ করতে পারে , যারা মনে করে অমুসসিলমরা কাফের । তারাই সত্যিই শয়তান । আর তাদের কাজ কর্ম গুলো তো শয়তানেইরই কাজ । একজন মাুনষ এরকম কাজ কখনো করতে পারে না । মানুষের যদি মনুষ্যত্ব থাকত তাহলে সে মানুষ কখনো সাম্প্রাদায়িক মনোভাব পোষন করত না । সব সময় ভাবত আমরা মানুষ । মানুষ হয়ে মানুষের ক্ষতি কখনো করা উচিত নয় । যে মানুষ হয়ে মানুষের ক্ষতি করে আর তাদের ধর্ম শেখায় মানুষের মাঝে ভেদাভেদ করে নির্যাতন করতে সে ধর্ম কখনো সৃষ্টিকর্তা মনোনীত হতে পারেই না , শয়তান মনোনীত ছাড়া ।
পৃথিবীতে ৬০০০ এর বেশি ধর্ম আছে । মানব সমাজে । কিন্তু মানুষ ভুলে গেছে যে তার ধর্ম মতাবাদ গুলো নয় । মানুষের ধর্ম হল মনুষ্যত্ব , মানবতা । মানুষ যখন মনুষ্যত্বকে বিসর্জন দিল তখন থেকেই নব্য মতবাদে মহান মহান পুরষের আবির্ভাব হলো , কাল্পনিক গল্পে অলৌকিকতা প্রচার হতে থাকল আর পরিশেষে তা ধর্মে পরিণত হল ।
মানুষ যতদিন এ ধর্মান্ধ থেকে বের হয়ে আসবে ততদিন শয়তানদের প্রসার ও প্রচার হতেই থাকবে ।


মানব সমাজে এত এত ধর্ম তবে ছাড়ে নাই মানুষ পশুত্ব
সে ধর্ম যে শয়তানের ধর্ম তাই জাগে না মনুষ্যত্ব ।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *