টাঙ্গাইল: হিন্দু নাবালিকা মেয়েকে ইসলামে ধর্মান্তরের জন্য অপহরন

সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের অষ্টম শ্রেণিতে পড়ুয়া নাবালিকা মেয়ে লক্ষ্মীরানি চক্রবর্তীকে(১৫) কে ১৮ জুন ২০২০ , তার স্কুল শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট যাওয়ার পথ থেকে ইসলাম গ্রহণের জন্য কিছু দুর্বৃত্তরা তাকে অপহরণ করে নিয়ে যায় । অপহরকরা মেয়েটিকে কোথায় রেখেছে তা সন্ধান করে বের করতে ব্যর্থ হওয়ায় পুলিশ এখন ও মেয়েটিকে উদ্ধার করতে পারেনি।
মেয়েটি টাঙ্গাইল জেলার গোপালপুর থানার অন্তর্গত হেমনগর শশিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রী।
অপহরণকারীরা হলেন-
১) মোহাম্মদ ইউসুফ (২০)
২) মোহাম্মদ আজমোহর (৬৪),
৩) মোহাম্মদ কলেজ (৪৫)
৪) মোহাম্মদ মনি (২৮),
৫) মোহাম্মদ নজরুল (৩৬)
৬) মোসাম্মত নূর নাহার (৩৫)।
মেয়েটির মা ভগবতী চক্রবর্তী (৩৫) তার স্বামী গৌরাঙ্গ চক্রবর্তী বাংলাদেশ সংখ্যালঘু মাইনরিটি ওয়াচকে বলেছেন: –
অভিযুক্তরা একে অপরের সহযোগিতায় আমার মেয়ের মুখ চেপে ধরে জোর করে তার ইচ্ছের বিরুদ্ধে তাকে ইসলামে ধর্মান্ত করার অভিপ্রায় নিয়ে একটি মাইক্রোবাসে উঠিয়ে সরিষাবাড়ী থানার অভিমুখে নিয়ে যায়। সাক্ষীরা ঘটনাটি প্রত্যক্ষ করেছে “

মেয়ের মা বাদী হয়ে ১ জুলাই, ২০ জুলাই গোপালপুর থানায় মহিলা ও শিশু নির্যাতন আইনের ৭/৩০ ধারায় মামলা দায়ের করেন।
বাংলাদেশ সংখ্যালঘু ওয়াচের পক্ষে বক্তব্য রেখে অ্যাডভোকেট রবীন্দ্র ঘোষ থানার অফিসার মোঃ মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে কথা বলেছেন। মেয়েটির মাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তিনি বাংলাদেশের মাইনরিটি ওয়াচকে বলেছিলেন যে তার মেয়ে নাবালিকা হলেও অভিযুক্তরা প্রভাবশালী ছিল। “আমি আমার মেয়েকে ফিরে চাই এবং আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবি করি।”
বাংলাদেশ সংখ্যালঘু ওয়াচ এই জাতীয় হিন্দু মেয়ে অপহরণের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে এবং অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীকে অবিলম্বে উদ্ধার এবং অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *