খারাপ ব্যাক্তিদের মাথা নত মানে বড় কোন বিপদের আশঙ্কা

খারাপ ব্যাক্তিদের মাথা নত মানে বড় কোন বিপদের আশঙ্কা

nkbarta যখন কোনও খারাপ ব্যক্তি আমাদের সামনে নত হয়, আমাদের আরও যত্নবান হওয়া উচিত ।শ্রীরামচরিত মানসে, রাবণ সীতা হরিণ করতে চেয়েছিলেন, তাই তিনি মারিচের কাছে এসে প্রণাম করলেন । এই দেখে মারিচ বুঝতে পারল যে, এখন একটি সংকট হতে চলেছে।

গোস্বামী তুলসীদাস রচিত শ্রীরামচরিত মানসে রাবণ ও মরিচের একটি অনুষ্ঠানের উল্লেখ রয়েছে। এই উপলক্ষে রাবণ সীতাকে হরিণের আকাঙ্ক্ষায় মরিচ নিকট পৌঁছেছেন। তিনি মারিচের সহায়তায় সীতা হরণ করতে চেয়েছিলেন। এই উপলক্ষে উল্লিখিত হিসাবে, কোনও খারাপ ব্যক্তি যখন আমাদের কাছে মাথা নত করে তখন আমাদের সাবধান হওয়া উচিত।

রাবণ সীতাকে হরণ করতে, তাঁর মামা মারিচের কাছে এসে নীচু হয়ে যায় । মরিচ রাবণকে ভালভাবে লক্ষ্য করেন এবং বুঝতে পারেন যে, এখন ভবিষ্যতে একটি সংকট দেখা দিতে চলেছে।

শ্রীরামচরিত মানসে এ সম্পর্কে উল্লেখ আছে যে-
নাভানি নীচ খুব বেদনাদায়ক। জিমি অঙ্কাস ধনু বিড়াল।
ভয়াল খাল প্রিয় অভ্যাস। জিমি আকালের কুসুম ভবানী।

এই শ্লোকটির সহজ অর্থ হ’ল, রাবণকে এভাবে মাথা নত করে দেখে মারিচ ভাবেন যে কুৎসিত ব্যক্তির কাছে মাথা নত করা বেদনাদায়ক। মারিচ রাবণের মামা ছিলেন, কিন্তু রাবণ ছিলেন রাক্ষস এবং অহঙ্কারী। তিনি বিনা কারও কাছে মাথা নত করতেন না। মরিচ এটি জানত এবং তাকে প্রণাম করা কিছু ভয়ানক সমস্যার লক্ষণ ছিল। ভীত হয়ে মরিচ রাবণকে প্রণাম করলেন।

মরিচ ভেবেছিলেন, তীর ছোরার আগে ধনুক বাকাতে হয় । সাপ কখনো সোজা হয়ে চলতে পারে না বাঁকা ছাড়া , তেঁতুল কখনো মিষ্টি হতে পারে নাটক দেওয়া ছাড়া । আর একটি বিড়াল শিকার ধরার জন্য ধ্যানস্থ হয়ে অপেক্ষা করে । একইভাবে রাবণও মরিচকে প্রণাম করলেন। কারন খারাপ লোক যখন ভাল ব্যবহার দেখায় অবশ্যই এর কারন আছে এবং ভবিষ্যত্বে অতিরিক্ত খারাপ কিছু ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা থাকে । এমন কি কুরুচিপূর্ণ ব্যক্তির মিষ্টি কন্ঠ খুব বেদনাদায়ক। মরিচ বুঝতে পেরেছিল যে তার কিছু খারাপ হতে চলেছে।

রাবণ মারিচকে সোনার হরিণ হয়ে সীতার বিপরীতে যেতে বলে। মরিচ রাবণের কথা এড়াতে পারে না। কারন রাবণ হল রাক্ষসের সম্রাট, উগ্রবাদি , বদমেজাজি অহংকারি । তাই তিনি সোনার হরিণ হয়ে মা সীতার সামনে পৌঁছে গেলেন। সীতা একটি সোনার হরিণ দেখে শ্রীরামকে আনতে বললেন। শ্রীরাম সীতার ইচ্ছা পূরণের জন্য হরিণকে অনুসরণ করতে থাকেন। শ্রীরামের তীরে মরিচ মারা গেলেন। কিছুক্ষণ পর লক্ষ্মণও শ্রীরামের সন্ধানে চলে যান এবং এই সুযোগেই রাবণ সীতাকে হরণ করেছিলেন।

এ থেকে বোঝা যায়, খারাপ লোকদের থেকে সাবধান থাকা উচিত। এই ধরনের লোকেরা যখন আমাদের সামনে মাথা নত করে তখন আরও বেশি যত্নবান হওয়া দরকার। অন্যথায় ব্যক্তিটি সমস্যায় পড়তে পারে । কারণ আমরা তো খুশি হই যখন জানতে পারি যে , খারাপ লোকটি ভাল হয়েছে । কিন্তু আদৌ কি লোকটি ভাল হয়েছে তা কিন্তু আমরা জানতে পারি না । তাই খারাপ লোক যখন ভাল ব্যবহার করে , অথবা মাথা নিচু করে আমাদের আরো সতর্ক থাকতে হবে যেন ভবিষ্যত্ব বড় কোন বিপদে না পড়তে হয় ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *